বনানী অগ্নিকাণ্ড এবং আক্কেলওয়ালা দালালী

বনানীতে আগুন লাগছে, সবাই কমবেশি ‘বাঁশি’ বাজাচ্ছে, আর পাল্লা কিনা চুপ! আসলে নাস্তিকতাও যখন একটা ‘ধর্ম’, তখন এই চুপ থাকাও একধরনের বাঁশি বাজানো। আবার এই যে সব নীরবতা ভঙ্গ করে দুই পয়সা কামানোর লোভে ব্লগ লিখতে বসছি–এটাও এক ধরনের বাঁশি বাজানো। বনানী অগ্নিকাণ্ড নিয়ে এত কাহিনী, এত নিউজ, এত পোস্ট, এত স্যাটেলাইট, এত হেলিকাপ্তার, এত… Read more বনানী অগ্নিকাণ্ড এবং আক্কেলওয়ালা দালালী

ইস্যু আসে, হিসু পায়

কথাটা আসলে ‘ইস্যু আসে, ইস্যু যায়’–এই ধরনের কথা বলতে বলতে বা শুনতে শুনতে সবাই কমবেশি হয়রান আবির হয়ে গেছেন–এই কথা বলাটা বা শোনাটাও আবার হয়রানের মধ্যে পড়ে। গীর্জা-মন্দির এবং শিয়া-আহমদিয়া মসজিদে হামলা হবে, কেউ কেউ চিল্লাবে, বেশিরভাগে মজা নেবে; সুন্নি-মসজিদে হামলা হবে, বেশিরভাগে চিল্লাবে, কেউ কেউ মজা নেবে; অমোজলেমরা মোজলেম মারবে, বেশিরভাগে চিল্লাবে, কেউ কেউ… Read more ইস্যু আসে, হিসু পায়

নিরপরাধ মোজলেম

ইউরেকা! ইউরেকা!! নিরপরাধ মোজলেম ফাইয়া গেছি ফাইয়া গেছি!!! এই যেমন ধরেন, মোজলেমরা যখন অমোজলেমদের কোতল করে, তখন সেই অমোজলেমদের সবচেয়ে বড় অপরাধ–তারা মোজলেম না, কাফের– ত্যানা এবং ত্যানার ন্যাজরে মাইনা নিতেছে না, এর চাইতে বড় অপরাধ আর কী হইতে ফারে! অর্থাৎ কাফের হওয়ার দরুণ ওই অমোজলেমরা নিরপরাধ নয়। যেমন, গত কয়েকদিনে নাইজেরিয়ার অমোজলেম খ্রিষ্টানরা কাফের…… Read more নিরপরাধ মোজলেম

“পুন্দানো” নিয়ে কিছু পুন্দানি

পুন্দানো শব্দের সূচনা হয় বাংলা ব্লগিং-এর প্রথম দিকে “ছাগু-পুন্দানো” উপলক্ষ্যে। ছাগুদের পক্ষে “ল্যাঞ্জা ইজ ভেরি ডিফিকাল্ট টু হাইড”…ল্যাঞ্জা দেখা মাত্রই তখন পুন্দানি চলত। ২। সামুব্লগের মডুরা এইসব পুন্দানি ডিলিট মারত বইলা আমুব্লগের সৃষ্টি। সেখানে কোনো মডারেশন আছিল না। বরং মডুরা নিজেরাও ছাগুদের পুন্দানি দিতে কার্পণ্য করত না। এভাবেই পুন্দানি জায়েজ হয়ে গেল। ৩। ছাগুরা তাদের… Read more “পুন্দানো” নিয়ে কিছু পুন্দানি