বাল্প্রীতি : স্ট্যাটাস রিভিউ # 3

হযরত বাল মসজিদ, শ্রীনগর

বাল্প্রীতি : স্ট্যাটাস রিভিউ # 3

স্ট্যাটাস :
//ইস্টিশন গ্রুপটা কী উদ্দেশ্যে পরিচালিত হচ্ছে? কারা পরিচালা করছে? দুই লক্ষ বাঙালি নারী ধর্ষণের দায় মুজিবের, এরকম পোস্ট যারা প্রমোট করে, তারা কারা? নিচের লেখাটা দেখুন।
………
“দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধে ৬০ লক্ষ ইহুদি হত্যার দায় যদি হিটলারের হয় তাহলে ১৯৭১ সালে ৩০ লক্ষ বাঙালি হত্যার দায় শুধুমাত্র ভুট্টো ও মুজিবের ছাড়া অন্য কারও নয় । ২ লক্ষ বাঙালি নারী ধর্ষণের দায় শেখ মুজিবের। শেখ মুজিব নিজের স্বার্থ চরিতার্থ ( পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রীর চেয়ার) করতে যেয়ে বাঙালি জাতিকে অন্ধকারের দিকে ঠেলে দিয়েছিলেন।”//

উৎস :
আলোচ্য অংশটুকু Samadder Ratan-এর ফেসবুক স্ট্যাটাস (10214683026284629) থেকে নেয়া হয়েছে।

প্রসঙ্গ :
ইস্টিশন ব্লগের ফেসবুক গ্রুপে করা একজনের পোস্ট কপিপেস্ট পূর্বক Samadder Ratan উরফে ‘সন্ন্যাসী’ সাব তিনটি প্রশ্ন তুলে ধরে উক্ত স্ট্যাটাসটি নাজিল করেছেন।

[পরে প্রাসঙ্গিক হতে পারে বিধায় উক্ত স্ট্যাটাসে করা কিছু কমেন্টও এখানে তুলে ধরা যেতে পারে–
Satya Ranjan Sarkar : Dada Basher Kella, Station- all are same feathers. According to digital law Rasharaj are victim, but the police can’t find out the Admin of the above Blog.

Byronic Suvra : বাহ, সবুজ বাংলা ব্লগের ঐতিহ্য রক্ষায় কেউ এগিয়ে এসেছে দেখে ভালো লাগলো।

Byronic Suvra : শেখ মুজিবকে হেও করলে বাহবা পাওয়া যায়।

Chakradhar Chowdhury : সবাই গুআজমের আন্ডাবাচ্চা!

Rajesh Paul : শিবির ক্যাডার দুলাল , পৃথ্যুর কাছ থেকে আর বেটার কি আশা করেন?

Shyamal Basu : বেশ ব্যাটা বলদ, পচা বাঁশের গন্ধ পাওয়া যাচ্ছে ।

Debu Mondol Bhajohari : ইস্টিশনে একবার রাজেশ দার মেনশনে গিয়ে কয়েকটা কমেন্ট করার পরে মিউট খাইছিলাম এরপরে ব্লক। তবে ওখানে বিজাত আর রাম খাসিতে ভরপুর।

Subrata Nandy : মাঝে মাঝে এমন পোস্ট দেখি। মনে হয় এখানে কিছু গলদ আছে। এমন করলে ইষ্টিশণ ছেড়ে দেবো।

Duranta Prokash Disgusting!! দেশকে যুদ্ধের দিকে ঠেলে দিয়ে ভাল করেছেন। তা না হলে দেশটা স্বাধীন হতো কি করে? পাকিস্তান আমাদেরকে সম্বর্ধনা দিয়া দেশটা ছেড়ে দিতো?]

বিশ্লেষণ :

মূলত এখানে বিশ্লেষণ করার তেমন কিছু নেই। শেখ মুজিব বা কারো সমালোচনাও উদ্দেশ্য নয়। উক্ত পোস্ট, মন্তব্য, এবং এ নিয়ে আরো কিছু পাল্টাপাল্টি পোস্ট-কমেন্ট দেখে নিজের মনে এমন কিছু চিন্তাভাবনা বা প্রশ্নের উদয় হতে পারে যা দেখে নিজেই অবাক হচ্ছি। তাই আজ বরং বিশ্লেষণ থাক–নিজের মনের ভাবনাগুলো, এবং সেগুলো কীভাবে এলো তাই বলি–

দ্বিজাতিতত্ত্ব বা দেশভাগ প্রসঙ্গে সংক্ষেপে দুইটি কথা আছে–
১) নেতাজী বেঁচে থাকলে কোনোভাবেই দেশভাগ হতে দিতেন না।
২) জিন্নাহ এবং নেহরু–দুজনেই যদি ভারতের প্রথম প্রধানমন্ত্রী না হতে চাইতেন, তাহলে ভারত ভাগ হতো না।

এবং ভারত ভাগকে কেন্দ্র করে ততো (সংখ্যাটা আমার অজানা) খুনোখুনি-ধর্ষণ-দাঙ্গা-হিন্দুমুসলিম ভেদাভেদও হতো না।

এই একই কথা বলা যায় পাকিস্তান-ভাগ উপলক্ষেও–৩০ লক্ষ হত্যা, ২ লক্ষ ধর্ষণ–হতো কি?

বাংলাদেশের ‘জাতির জনক’ বলা হয় শেখ মুজিবকে। এই শেখ মুজিব ভারত ভাগের পক্ষে ছিলেন?
হ্যাঁ, বেশ জোরালো ভাবেই ছিলেন। এমনকি অবিভক্ত ভারতের যতটা বেশি সম্ভব অঞ্চল পাকিস্তানের ভাগে পড়ে, সেজন্যও যেখানেই হ্যাঁ/না ভোট হতো, সেখানেই গিয়ে পাকিস্তানের পক্ষে প্রচারণা চালাতেন। এটা ঐতিহাসিক তথ্য যা তিনি নিজের আত্মজীবনীতেই লিখে গেছেন।

১৯৪৭ সালে পাকিস্তান হওয়ার পরে পূর্ব পাকিস্তান ভাগ হয়ে স্বাধীন হয় ১৯৭১ সালে, অর্থাৎ ২৪ বছর পরে। এখানে প্রশ্ন–পাকিস্তান ভাগের ঠিক কতো বছর পরে শেখ মুজিব পূর্ব পাকিস্তানের স্বাধীনতা চাইছিলেন?
১৯৭০-এর আগে শেখ মুজিব কি কখনোই এরকম কোনো ঘোষণা বা ইঙ্গিত দিয়েছিলেন?

১৯৭০ সালে পাকিস্তানের প্রথম সাধারণ নির্বাচনে পূর্ব পাকিস্তান আওয়ামী লীগ জয়ী হওয়ার পরে জুলফিকার আলী ভুট্টো শেখ মুজিবের পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী হওয়ার বিরোধিতা করেছিলেন। ভুট্টো যদি ওটা না করতেন, বরং যদি শেখ মুজিবকে অবিভক্ত পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী হওয়ার সুযোগ দিতে তাহলে কি পূর্ব-পাকিস্তানের স্বাধীনতার প্রশ্ন আসত? এখানে অনেকে ছয় দফার কথা তুলতে পারেন, কিন্তু এটা পূর্ব পাকিস্তানের ‘স্বাধীনতা’ নয়, বরং স্বায়ত্তশাসন মাত্র। ভুট্টো স্বায়ত্তশাসনের দাবী মেনে নিলেও কি পূর্ব-পাকিস্তানের স্বাধীনতার প্রশ্ন আসত? হয়তো আসতো, তবে সেটা ১৯৭১-এ নয়, আরো পরে…অনেক পরে…আসলেও আসতে পারত আবার না-ও পারত…

এখানেও দেখা যায়, শেখ মুজিব যদি কিছুটা হলেও পাকিস্তানের ‘রাষ্ট্রীয় ক্ষমতা’ হাতে পেতেন তাহলে ১৯৭১, মুক্তিযুদ্ধ, ৩০ লক্ষ, ২ লক্ষ, স্বাধীনতা–এসবও হতো না। আর এটাও তো তথ্য–শেখ মুজিব পরে প্রধানমন্ত্রী হয়েছেন, সব ক্ষমতা একার হাতে নেয়ার জন্য আরো অনেক কিছু করেছেন… যা গান্ধী করেন নাই… এটা স্পষ্ট–মুজিবের রাজনীতির উদ্দেশ্য ছিল (কিছুটা হলেও) রাষ্ট্রীয় ক্ষমতার স্বাদ গ্রহণ করা…

আগেই বলছিলাম–এটা শেখ মুজিব বা কারো সমালোচনাও উদ্দেশ্য নয়, তাই ওইসব তথ্য দিয়ে পোস্ট ভারী করছি না আর। বরং এবার মূল প্রশ্নে যাই… তার আগে–হয়তো খেয়াল করছেন, উপরে কিছু কমেন্টও তুলে ধরছিলাম। কমেন্টগুলোর মধ্যে একটা মিল আছে–কমেন্টকারী সকলেই একটা কমন ব্যাকগ্রাউন্ড আছে–হিন্দুধর্ম থেকে আসা। এরকম প্রচুর হিন্দুই ১৯৭১-মুক্তিযুদ্ধ-স্বাধীনতা-স্বাধীন বাংলাদেশ নিয়ে একেবারে গদগদ–আমার অবাক হওয়ার বিষয়টা ঠিক এখানেই।

অবিভক্ত ভারত ভেঙে পাকিস্তান হয়েছিল আজ থেকে প্রায় ৭২ বছর আগে। আর পাকিস্তান ভেঙে বাংলাদেশ হয়েছিল প্রায় ৪৮ বছর আগে। অর্থাৎ বাংলাদেশ পাকিস্তানের চেয়ে সময়ের হিসাবে ২৪ বছরের ছোটো।

পাকিস্তান হওয়ার (২০১৯-১৯৪৭) ৭২ বছরে পাকিস্তানে হিন্দুর সংখ্যা ১ শতাংশের কাছাকাছি নেমে এসেছে। এদিকে বাংলাদেশের গবেষকেরা ২০১৩ সালে বলেছিলেন যে, আর ৩০ বছর পরে বাংলাদেশ হিন্দুশূন্য হবে। অর্থাৎ (২০১৩-১৯৭১) + ৩০ = ৭২ বছর! ৭২ বছরে খোদ পাকিস্তানের হিন্দু সংখ্যা যেখানে এখনো ১%-এর বেশি, সেখানে গবেষকরা বলছেন, ৭২ বছরে বাংলাদেশের হিন্দুর সংখ্যা হবে জিরো… জাস্ট জিরো!

সাধের ১৯৭১-মুক্তিযুদ্ধ-স্বাধীনতা-বাংলাদেশ থেকে রতন সমাদ্দার উরফে সন্ন্যাসী সপরিবারে দেশ ত্যাগে বাধ্য হয়ে বিদেশে এসাইলাম [যদিও অনেক এসাইলামখোর আজকাল আবার এসাইলাম না বলে ‘স্কলারশিপ’ বলেন] নিয়েছেন অনেক আগেই। বাংলাদেশে আর কোনোদিন ফিরতে পারবেন কি না বা আদৌ ফিরবেন কি না–জানা নেই। হিন্দু ব্যাকগ্রাউন্ড থেকে আসা আর যাদের কমেন্ট উপরে উল্লেখ করেছি, তেনারাও কমবেশি বাংলাদেশের বাইরে এক পা দিয়ে বসে আছেন… আর একটা মোক্ষম ধাক্কা খেলে অন্য পা-টাও হয়তো বাংলাদেশ থেকে সরিয়ে নেবেন। তবুও তেনাদের ১৯৭১-মুক্তিযুদ্ধ-স্বাধীনতা-স্বাধীন বাংলাদেশ এবং সর্বোপরি লীগের পা-চা-টা বন্ধ হয় না!

এর পরে আরো ভাবছি–৭২ বছরে পাকিস্তানে যেখানে এখনো হিন্দু ১%-এর বেশি, এখানে ৭২ বছরে বাংলাদেশে হবে জিরো–তাহলে পাকিস্তানের হিন্দুরা পাকিস্তানে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত না কি বাংলাদেশের হিন্দুরা হচ্ছে বাংলাদেশে? বাংলাদেশে তো স্বাধীনতার স্বপক্ষের শক্তি, প্রগতিশীল রাজনৈতিক দল বা সরকার বা মানুষের কথা শোনা যায়, তারপরেও বাংলাদেশের হিন্দুদের অবস্থা তুলনামূলকভাবে পাকিস্তানের হিন্দুদের চেয়ে খারাপ মনে হচ্ছে কেনো? অমুসলিমদের হিসাবে ধরলে এদের মন্দির-মূর্তি ভাঙা, আগুন দিয়ে মন্দির-বসতবাড়ি জ্বালিয়ে দেয়া… পাকিস্তানে তাও দুএকটা বিচারের কথা শোনা যায়… বাংলাদেশে শুনছেন কখনো?

প্রশ্নটা আবার রাখি–পূর্ব পাকিস্তান স্বাধীন হয়ে বাংলাদেশ না হয়ে যদি এখনো পাকিস্তানই থাকতো, তাহলে এদেশের হিন্দু-অমুসলিমদের অবস্থার এমন কী পরিবর্তন হতো যা বাংলাদেশ হওয়ার পরে হচ্ছে না? একজন হিন্দু বা অমুসলিমের দিক থেকে সেই পাকিস্তান আর এই বাংলাদেশের মধ্যে মূলত কোনো পার্থক্য আছে কোথাও?

[বেঁচে থাকলে বাংলাদেশের বয়স ৭২ হলে (২০১৩+৩০ = ) ২০৪৩ সালে এই পোস্টটা নিয়ে আবার বসবো]

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *